শাওয়াল মাসের ছয় রোজার ফজিলত

পবিত্র রমজান মাসের পরেই শাওয়াল মাস।শাওয়াল মাসের ছয়টি রোজা রাসূল (সা.) নিজে রাখতেন এবং সাহাবিদেরকে রাখতে উদ্বুদ্ধ করতেন। এই ছয় রোজার রয়েছে অপরিসীম গুরুত্ব ও ফযিলত।

Apr 20, 2024 - 12:21
Apr 20, 2024 - 12:28
 0  4
শাওয়াল মাসের ছয় রোজার ফজিলত

শাওয়াল মাসের ফজিলত 

শাওয়াল হলো আরবি চান্দ্র বছরের দশম মাস।এই মাসের প্রথম তারিখে ঈদুল ফিতর।শাওয়াল মাস হজ্জের মাসগুলোর প্রথম মাস। এ মাস থেকে হজ্জের কার্যক্রম শুরু হয়। এছাড়া সহীহ হাদীস দ্বারা এ মাসের একটি ফযীলত প্রমাণিত।

 

আবু আইউব আনসারি রা. বলেন, রাসূলুল্লাহ (ﷺ) বলেছেন, যে ব্যক্তি রামাদান মাসের সিয়াম পালন করবে এবং তারপর শাওয়াল মাসের ছয়দিন সিয়াম পালন করবে, সে সারাবছর সিয়াম পালনের সাওয়াব অর্জন করবে।সহীহ মুসলিম, হাদীস–১১৬৪

এই রোজার সওয়াব  আল্লাহ তাআলাদশগুণ বৃদ্ধি করে দেন। রমজান দশ মাস সমান আর শাওয়ালের ছয় দিন দুই মাস সমান। মোট এক বছর।

শাওয়ালের অর্থ ও তাৎপর্য: 

‘শাওয়াল’ আরবি শব্দ। এর অর্থ হলো উঁচু করা, উন্নতকরণ, উন্নত ভূমি, পূর্ণতা ইত্যাদি।এসব অর্থের প্রতিটির সঙ্গেই শাওয়ালের সুগভীর সম্পর্ক রয়েছে। এই মাসের আমলের দ্বারা উন্নতি লাভ হয়, পূর্ণতা ফল লাভ হয়, নেকির পাল্লা ভারী হয়, গৌরব অর্জন হয় ও সাফল্য আসে।এসবই হলো শাওয়াল মাসের নামের যথার্থতা। এবং এই মাসে রাসূলুল্লাহ (ﷺ) সাহাবীদেরকে রোজা রাখার নির্দেশ করতেন।

রোজার সময় ও নিয়ম:

রমজানের সিয়াম পালনের পর শাওয়াল মাসে ছয়টি রোজা রাখা সুন্নত-মুস্তাহাব; ফরজ নয়।এই রোজা  রাখার সময় পুরো শাওয়াল মাস।অর্থাৎ ঈদুল ফিতরের পরের দিন থেকে জিলকদ মাসের চাঁদ দেখা পর্যন্ত।এই ছয় রোজা ধারাবাহিক রাখা জরুরি নয়। পুরো সময়ের ভেতর ছয়টি রোজা পূর্ণ করতে পারলেই সুন্নত আদায় হয়ে যাবে।

What's Your Reaction?

like

dislike

love

funny

angry

sad

wow